ঈসায়ী সন ও ফসলী সন

গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জির উদ্ভব, ফসলী সনের উদ্ভব ও তৎসংশ্লিষ্ট মূল্যবান কলাম নিচের ট্যাবে বিষয় ভিত্তিক বিন্যাস করা হয়েছে।

বর্ষপঞ্জি বলতে বছর গণনা বা হিসাব করার একটি সুশৃঙ্খল তর্জ ত্বরীকাকে বুঝানো হয়। মূলতঃ বর্ষপঞ্জি হচ্ছে মাস, সপ্তাহ ও দিনে বিভক্ত একটি বছর ভিত্তিক সারণি; যেখানে দিন, সপ্তাহ, মাস ও বছর এককগুলো ব্যবহৃত হয়। বর্ষপঞ্জি প্রণয়নের ভিত্তি হলো মহাকাশবিজ্ঞানের পর্যবেক্ষণলব্দ উপাত্ত। আর এই উপাত্ত দ্বারা সময়ের পরিক্রমাকে বছর, মাস ও দিনে বিভক্ত করা হয়। আবর্তনশীল জ্যোতিষ্কসমূহ পৃথিবী, চাঁদ ও সূর্য যাদের নিজ অক্ষের উপর ঘূর্ণন ক্রমান্বয়ে দিন, মাস ও বছরের হিসাব সৃষ্টি করে। সৌরজগতে পৃথিবী, চাঁদ ও সূর্য একে অপরের আবর্তনের ফলে আমরা দিন, মাস ও বছরের হিসাব পাই। যেমন:

দিন : পৃথিবী নিজ অক্ষের উপর প্রতিবার ঘূর্ণনের ফলে এক সৌর দিবস অতিক্রম করে। সাধারণভাবে, ঘড়ির কাঁটার হিসেবে রাত ১২টা থেকে পরবর্তী রাত ১২টার মধ্যবর্তী সময়কে এক পূর্ণ সৌর দিবস ধরা হয়। আবার এক সূর্যাস্ত থেকে পরবর্তী সূর্যাস্তের মধ্যবর্তী সময়কে এক পূর্ণ চন্দ্র দিবস ধরা হয়।

মাস : চাঁদ নিজ অক্ষের উপর আবর্তনের সাথে সাথে পৃথিবীকেও একটি নির্দিষ্ট উপবৃত্তাকার কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করে থাকে। পৃথিবীর চারদিকে একবার ঘুরে আসতে চাঁদের যে সময় লাগে তাকেই চন্দ্রমাস বলে। এটা সাধারণত দু’ অমাবস্যা বা দু’ পূর্ণ জ্যোৎস্ননার মধ্যবর্তী সময়কাল। সাধারণত এই মাস ২৯.৩০৫৫ থেকে ২৯.৮১২৫ সৌরদিবসের মধ্যে পরিবর্তিত হয়। চাঁদের গড় প্রদক্ষিণ কাল বা চন্দ্রমাসের গড় দৈর্ঘ্য হচ্ছে ২৯.৫৩০৫৮৮১ সৌর দিবস। এই পরিক্রমণ হিসাব থেকে ২৯ দিন অথবা ৩০ দিনে একমাস স্থির করা হয়। অর্থাৎ কোন মাস ২৯ দিনে আবার কোন মাস ৩০ দিনে গণনা করা হয়।

বছর : পৃথিবীর আহ্নিক গতির (পৃথিবী নিজ অক্ষে ঘূর্ণয়ন) ফলে যেমন একটি সৌর দিনের হিসেব পাওয়া যায় তেমনি বার্ষিক গতির (সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর ঘূর্ণয়ন) ফলে একটি বছরের হিসেব পাওয়া যায়। সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর প্রতিবার ঘূর্ণয়ন সময়কাল ৩৬৫.২৫ দিন। তাই ৩৬৫ দিনে ১ সৌর বছর গণনা করা হয়। আবার ১২টি চন্দ্রমাস যোগ করলে ৩৫৪-৩৫৫ দিনে এক চন্দ্র বছর হয়। অর্থাৎ প্রতিটি চন্দ্র বছর সৌর বছর থেকে ১০-১১ দিন কম।

সপ্তাহ : সাধারণত ৭ দিনে এক সপ্তাহ হয়ে থাকে। বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীরা সপ্তাহের দিনে সংখ্যার হিসাব বিভিন্নভাবে করে থাকে। কিন্তু সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে সৃষ্টির সূচনার পূর্ব থেকেই সপ্তাহের দিনের সংখ্যা ৭টি নির্ধারণ করা হয়েছে। যেমন পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে-

عَنْ حَضْرَتْ اَبِـىْ هُرَيْرَةَ رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ‏‏ اَخَذَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ بِيَدِىْ فَقَالَ‏‏ ‏خَلَقَ اللهُ التُّرَبَةَ يَوْمَ السَّبْتِ وَخَلَقَ فِيْهَا الْـجِبَالَ يَوْمَ الْاَحَدِ وَخَلَقَ الْشَّجَرَ يَوْمَ الْاِثْنَيْنِ وَخَلَقَ الْـمَكْرُوْهَ يَوْمَ الثُّلَاثَاءِ وَخَلَقَ النُّوْرَ يَوْمَ الْاَرْبِعَاءِ وَبَثَّ فِيْهَا الدَّوَابَّ يَوْمَ الْـخَمِيْسِ وَخَلَقَ اٰدَمَ عَلَيْهِ سَّلَمَ بَعْدَ الْعَصْرِ مِنْ يَّوْمِ الْـجُمُعَةِ فِـيْ اٰخِرِ الْـخَلَقِ فِـىْ اٰخِرِ سَاعَةٍ مّنَ النَّهَارِ فِيْمَا بَيْنَ الْعَصْرِ اِلَى اللَّيْلِ‏.

অর্থ : “হযরত আবূ হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আমার হাত ধরে বললেন, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইয়াওমুস সাব্ত পৃথিবী সৃষ্টি করেছেন, ইয়াওমুল আহাদ পর্বত সৃষ্টি করেছেন, ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম গাছ সৃষ্টি করেছেন, ইয়াওমুছ ছুলাছা শরীয়ত কৃর্তক নিষিদ্ধ বিষয়গুলো সৃষ্টি করেছেন, ইয়াওমুল আরবিয়া আলো সৃষ্টি করেছেন, ইয়াওমুল খ¦মীস সব ধরনের প্রাণী সৃষ্টি করেছেন, ইয়াওমুল জুমু‘আ আছরের পর হযরত আদম ছফিউল্লাহ আলাইহিস সালাম উনাকে সর্বশেষ সৃষ্টি হিসেবে সৃষ্টি করেছেন।” (মুসলিম শরীফ)

অর্থাৎ সপ্তাহের বারসমূহ হচ্ছে-

বার (উচ্চারণ) বার (আরবী)
ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম يَوْمُ الْاِثْنَيْنِ الْعَظِيْمِ
ইয়াওমুছ ছুলাছা يَوْمُ الثُّلَاثَاءِ
ইয়াওমুল আরবিয়া يَوْمُ الْاَرْبِعَاءِ
ইয়াওমুল খমীস يَوْمُ الْـخَمِيْسِ
ইয়াওমুল জুমু‘আ يَوْمُ الْـجُمُعَةِ
ইয়াওমুস সাবত يَوْمُ السَّبْتِ
ইয়াওমুল আহাদ يَوْمُ الْاَحَدِ

গণনা পদ্ধতি অনুসারে বর্ষপঞ্জি প্রধানত ২ ধরণের। যথা :
১. সৌর বর্ষপঞ্জি ও ২. চন্দ্র বর্ষপঞ্জি।
এ প্রসঙ্গে খ¦ালিক, মালিক, রব, মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

هُوَ الَّذِىْ جَعَلَ الشَّمْسَ ضِيَاءً وَالْقَمَرَ نُوْرًا وَقَدَّرَهُ مَنَازِلَ لِتَعْلَمُوْا عَدَدَ السّنِيْنَ وَالْـحِسَابَ ۚ
অর্থ : “মহান আল্লাহ পাক যিনি সূর্যকে সৃষ্টি করেছেন উজ্জ্বল আলোকময় করে আর চাঁদকে স্নিগ্ধ আলো বিতরণকারীরূপে। অতঃপর নির্ধারণ করেছেন এর জন্য মঞ্জিলসমূহ যাতে তোমরা জানতে পারো বছরগুলোর সংখ্যা ও হিসাব।” (পবিত্র সূরা ইঊনুস শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৫)

সৌর বর্ষপঞ্জি ও চন্দ্র বর্ষপঞ্জি মধ্যে পার্থক্য

সৌর বর্ষপঞ্জি চন্দ্র বর্ষপঞ্জি
১. সূর্যের চারদিকে পৃথিবীর আবর্তনের সাপেক্ষে গণনা করা হয়। ১. পৃথিবীর চারদিকে চাঁদের আবর্তনের সাপেক্ষে গণনা করা হয়।
২. সৌর বর্ষপঞ্জিতে মাস শুরু করার জন্য সূর্য দেখার প্রয়োজন পড়ে না। ২. চন্দ্র বর্ষপঞ্জিতে মাস শুরু করার জন্য খালি চোখে বাঁকা চাঁদ দেখার প্রয়োজন পড়ে।
৩. প্রতিটি মাসের ব্যাপ্তি পূর্ব নির্ধারিত। ৩. প্রতিটি মাসের ব্যাপ্তি পূর্ব নির্ধারিত নয়। বরং বাঁকা চাঁদ দেখা যাওয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট।
৪. প্রতিটি মাসের ব্যাপ্তি পূর্ব নির্ধারিত থাকার ফলে প্রতিটি সৌর বছরের ব্যাপ্তিও পূর্ব নির্ধারিত। ৪. প্রতিটি মাসের ব্যাপ্তি চাঁদ দেখা যাওয়ার সাথে সংশ্লিষ্ট হওয়ার ফলে প্রতিটি চন্দ্র বছরের ব্যাপ্তি পূর্ব নির্ধারিত নয়।
৫. সৌরবর্ষ সাধারণত ৩৬৫ দিনে হয়ে থাকে। অধিবর্ষ হলে ৩৬৬ দিন হয়। ৫. চন্দ্রবর্ষ ৩৫৪ বা ৩৫৫ দিনে হয়ে থাকে।
৬. সৌর বছরের তুলনায় চন্দ্র বর্ষ ১০-১১ দিন কম। ৬. চন্দ্র বছরের তুলনায় সৌর বর্ষ ১০-১১ দিন বেশি।
৭. প্রতি বছর সূর্যের আবর্তনের সময়ের সাথে বর্ষপঞ্জি গণনার একটি পার্থক্য তৈরি হয়। ৭. চাঁদের আবর্তনের সাথে পূর্ণ সামঞ্জস্য রেখে চাঁদ দেখে মাস শুরু করা হয় বিধায় কোন তারতম্য হয় না।
৮. সূর্যের আবর্তনের সাথে সামঞ্জস্যতা ঠিক রাখার জন্য সৌর বর্ষপঞ্জিতে প্রতি ৪ বছর অন্তর অধিবর্ষ গণনা করা হয়। ৮. চাঁদ দেখে মাস শুরু করা হয় বিধায় কোন অধিবর্ষ গণনা করতে হয় না।

সৌর বছর : সূর্যের বার্ষিক গতি অনুযায়ী সৌর বছর (Solar Year) প্রতিষ্ঠিত। সূর্যের পথকে ক্রান্তিবৃত্ত (Ecliptic) বলা হয়। সূর্যপথের (ক্রান্তিবৃত্তের) কোন এক বিন্দু থেকে সূর্য যাত্রা করে ঐ বিন্দুতে তার প্রত্যাবর্তন কালকে এক সৌর বছর বা ক্রান্তি বছর বলা হয়। জ্যোতির্বিজ্ঞান ভিত্তিক পর্যবেক্ষণলব্দ উপাত্ত থেকে পাওয়া তথ্য মতে ক্রান্তি বছর অর্থাৎ ঋতুসমূহের বছরই (Year of the Season) প্রকৃত বছর। সূর্যের এই আবর্তন কাল ধ্রুব নয়, অতি ধীরে হলেও এই আবর্তন কাল হ্রাস পাচ্ছে। তাই সৌর দিবসের সংখ্যা ৩৬৫.২৪২২ কে প্রমাণ সংখ্যা হিসেবে গণনা করে বর্ষপঞ্জি রচনা করা হয়। আজ থেকে পাঁচ হাজার বছর পূর্বে এই দৈর্ঘ্য ছিল প্রায় ৩৬৫.২৪২৫ সৌরদিবস।

চান্দ্র বছর : চন্দ্রের বর্ষ পরিক্রমার ভিত্তিতে এই সন গণনা করা হয়। চান্দ্র মাস হচ্ছে চন্দ্রের সূর্যের দিকের অবস্থান (অমাবস্যা) থেকে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে একই অবস্থানে প্রত্যাবর্তনের সময়। সাধারণত এই মাস ২৯.৩০৫৫ থেকে ২৯.৮১২৫ সৌরদিবসের মধ্যে পরিবর্তিত হয়। চন্দ্রের গড় প্রদক্ষিণ কাল (Lunation) বা চান্দ্র মাসের গড় দৈর্ঘ্য হচ্ছে ২৯.৫৩০৫৮৮১ সৌর দিবস। চন্দ্রের হিসাবে ৩৫৪ দিন ৯ ঘন্টায় এক চান্দ্র বছর (Lunar Year)। অর্থাৎ চান্দ্র বৎসরের দৈর্ঘ্য ৩৫৪.৩৬৭০৫৭২ সৌরদিবস।

বর্তমানে সমগ্র পৃথিবীতে প্রচলিত সৌরবর্ষপঞ্জিটি খ্রিস্টানদের তথাকথিত ধর্মযাজক পোপ গ্রেগরির নামানুসারে “গ্রেগরিয়ার বর্ষপঞ্জি” নামে পরিচিত। তবে আমাদের দেশে এই বর্ষপঞ্জিটি “ইংরেজি ক্যালেন্ডার” নামেও ব্যবহৃত হয়ে থাকে। পোপ গ্রেগরির প্রকৃত নাম উগো বেনকোমপাগনাই; সে ছিল ১৩তম পোপ। ১৫৮২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি, গ্রেগরি একটি ডিক্রি জারীর মাধ্যমে গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জি চালু করে। সে খ্রিস্টানদের ধর্মীয় গুরু হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও প্রকৃতপক্ষে সে ছিল একজন চরিত্রহীন মানুষ। সে ছিল একজন অবৈধ সন্তানের জনক। যার নাম ইতিহাসে লেখা আছে জিয়াজোমো বেনকোমপাগনাই। পরবর্তীতে ক্ষমতার অপব্যবহার করে তার এই অবৈধ সন্তানকে সে আর্মির প্রধান এবং তারপরে ডিউক পদে অধিষ্ঠিত করেছিলো। নাঊযুবিল্লাহ!

এই পোপ গ্রেগরী তার শাসনামলে পুর্তগালের রাজা সিবাসতিয়ানকে প্ররোচিত করেছিলো মরক্কোর বাদশাহ আব্দুল মালিকের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করতে। যা তার ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাবের সামান্য নমুনা মাত্র।

গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জির মাধ্যমে গ্রিক দেব-দেবীর স্মরণ :

এই বর্ষপঞ্জির ৬টি মাসের (জানুয়ারী, ফেব্রুয়ারী, মার্চ, এপ্রিল, মে ও জুন) নামকরণ করা হয়েছে দেব-দেবীর নামে, ৪টি মাসের (সেপ্টেম্বর, অক্টোবর, নভেম্বর ও ডিসেম্বর) নামকরণ হয়েছে রোমান শব্দ থেকে আর ২টি মাসের (জুলাই ও অগাস্ট) নামকরণ করা হয়েছে দুই রোমান শাসকের স্মরণে। মাসের নামের দ্বারা দেব-দেবী ও রোমান শাসকের নাম স্মরণ করা হয়। নাঊযুবিল্লাহ!

January (জানুয়ারী) : রোমে ‘জানুস’ নামক এক দেবতা ছিল। রোমবাসী তাকে সূচনার দেবতা বলে মানত। যে কোনো কিছু করার আগে তারা এ দেবতার নাম স্মরণ করত। তাই বছরের প্রথম মাসটিও তার নামে রাখা হয়েছে।

February ফেব্রুয়ারী) : রোমান দেবতা ‘ফেব্রুস’-এর নাম অনুসারে ফেব্রুয়ারী মাসের নামকরণ করা হয়েছে।

March (মার্চ) : রোমান যুদ্ধ-দেবতা ‘মরিস’ এর নামানুসারে তারা মার্চ মাসের নামকরণ করে।

April (এপ্রিল) : কেউ বলে এ শব্দটি এসেছে aphrodite (aphros) অথবা apru দেবীর নাম থেকে। কেউ বলে এপ্রিল নাম এসেছে একজন কাল্পনিক দেবতা aper বা aprus থেকে।

May (মে) : রোমানদের আলোক দেবী ‘মেইয়ার’-এর নামানুসারে মাসটির নাম রাখা হয় মে।

June (জুন) : রোমানদের নারী, চাঁদ ও শিকারের দেবী ছিল ‘জুনো’। তার নামেই জুনের সৃষ্টি।

July(জুলাই) : জুলিয়াস সিজারের নামানুসারে জুলাই মাসের নামকরণ।

August (আগস্ট) : অগস্টাস সিজার বছরকে ঢেলে সাজানোর পর আগস্ট মাসটি তার নিজের নামে রাখার জন্য সিনেটকে নির্দেশ দেয়। সেই থেকে শুরু হয় আগস্ট মাস।

September (সেপ্টেম্বর) : সেপ্টেম্বর শব্দের শাব্দিক অর্থ সপ্তম মাস। কিন্তু সিজার বর্ষ পরিবর্তনের পর তা এসে দাঁড়ায় নবম মাসে। তারপর এটা কেউ পরিবর্তন করেনি।

October(অক্টোবর) : ‘অক্টোবর’-এর শাব্দিক অর্থ বছরের অষ্টম মাস। সেই অষ্টম মাস ক্যালেন্ডারে এখন স্থান পেয়েছে দশম মাসে।

November (নভেম্বর) : ‘নভেম’ শব্দের অর্থ নয় (৯)। সেই অর্থানুযায়ী তখন নভেম্বর ছিল নবম মাস। জুলিয়াস সিজারের কারণে আজ নভেম্বরের স্থান এগারতে।

December (ডিসেম্বর) : ল্যাটিন শব্দ ‘ডিসেম’ অর্থ দশম। সিজারের বর্ষ পরিবর্তনের আগে অর্থানুযায়ী এটি ছিল দশম মাস। কিন্তু আজ এ মাসের অবস্থান ক্যালেন্ডারের শেষ প্রান্তে।

এছাড়া এই বর্ষপঞ্জির প্রতিটি দিনেরও নামকরণ করা হয়েছে দেব-দেবীর নামে। নাঊযুবিল্লাহ! যেহেতু রোমানরা গ্রহের সাথে দেবতার সম্পর্ক করতো; তাই তাদের সপ্তাহের দিনে নামগুলো ছিল এরূপ-

Sunday (সানডে)- Day of God (বিধাতার দিন)। নাঊযুবিল্লাহ! দক্ষিণ ইউরোপের সাধারণ ‘লোকেরা বিশ্বাস করত এবং ভাবত যে একজন দেবতা রয়েছে যে শুধুমাত্র আকাশে গোলাকার আলোর বল অঙ্কন করে। ল্যাটিন ভাষায় যাকে বলা হয় Solis ‘সলিস’। এর থেকেই Dies Solis ‘ডাইচ সলিস’ অর্থাৎ সূর্যের দিন। উত্তর ইউরোপের লোকেরা এই দেবতাকে ডাকত Sunnadaeg ‘সাননানডায়েজ’ নামে। যা পরবর্তীতে বর্তমান সান ডে-তে রূপান্তরিত হয়। নাঊযুবিল্লাহ!

Monday (মানডে)- গড়ড়হ’ং ফধু (চাঁদের দেবীর দিন)। নাঊযুবিল্লাহ! এই নামের সাথেও দক্ষিণ ইউরোপের লোকেরা জড়িত। রাতের বেলায় আকাশের গায়ে রূপালী বল দেখে তারা ডাকত Luna ‘লুনা’ নামে। ল্যাটিন শব্দ Lunaedies ‘লুনায়েডাইস’। উত্তর ইউরোপের লোকেরা ডাকত Monandaeg ‘মোনানডায়েজ’। এ মানডে কিন্তু মোনানডায়েজ থেকে রূপান্তর হয়। নাঊযুবিল্লাহ!

Tuesday (টুইসডে)- দেবতা Tiw-এর নাম থেকে। নাঊযুবিল্লাহ! রোমানরা বিশ্বাস করত যে, Tiw ‘টিউ’ নামক একজন দেবতা আছে যে যুদ্ধ দেখাশুনা করে। তারা ভাবত যারা টিউকে আশা করত টিউ তাদেরকে সাহায্য-সহযোগিতা করত যুদ্ধের ময়দানে এবং যারা পরলোক গমন করেছে তাদেরকে টিউ পাহাড় থেকে নেমে একদল মহিলা কর্মী নিয়ে বিশ্রামের জায়গা ঠিক করত। লোকেরা এই ‘টিউ’ দেবতার সম্মানে একদিনের নাম করে ঞরবিংফধবম ‘টিউয়েজডায়েজ’। যার ইংরেজি অর্থ টুইস ডে। নাঊযুবিল্লাহ!

Wednesday- Mercury দেবতার নাম থেকে। বুধবারের ইংরেজি রূপ Wednesday, দেবতাদের মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ‘উডেন’ বলে দক্ষিণ ইউরোপের লোকেরা ভাবত। সে সারা দিন ঘুরে জ্ঞান লাভ করতো যার জন্য তার একটি চোখ হারাতে হয়েছিল। এই হারানো চোখকে সে সবসময় লম্বাটুপি দিয়ে আবৃত করে রাখতো। দুটো পাখি উডেনের গোয়েন্দা হিসেবে কাজ করত, তারা উডেনের কাঁধে বসে থাকত। রাতে তারা সারা পৃথিবীর ঘটনাবলী উডেনকে শুনাত। এভাবেই উডেন সারা পৃথিবীর খবর শুনতে সক্ষম হয়। এজন্য লোকেরা নাম রাখল Wednesdaeg ‘উডেনেসডায়েজ’। যা বর্তমান ওয়েডনেস ডে নামে পরিচিত। নাঊযুবিল্লাহ!

Thursday- Thor দেবতার নাম থেকে। বৃহস্পতিবারের ইংরেজি রূপ Thursday, বজ্রপাত ও বিদ্যুৎ চমকানোর সম্পর্ক না জানার ফলে মানুষ মনে করত যে, বজ্রপাত ও বিদ্যুৎ চমকানোর জন্য একজন দেবতা দায়ী। তারা শুধু আলো জ্বলতে ও বিদ্যুৎ চমকাতে দেখত। তারা দেবতার নাম রাখে Thor ‘থর’ যাকে Thunder ও বলা হয়। জার্মান বজ্র-দেবতা থর-এর রোমান শব্দ Jupiter ‘জুপিটার’ এবং গ্রীক শব্দ Jeus ‘জিউস’। তাদের মধ্যে এই অন্ধ বিশ্বাস ছিল যে, দেবতা থর যখন রাগান্বিত হয় তখন সে রাগে আকাশে একটা হাতুড়ি নিক্ষেপ করে দুটি ছাগলের গাড়িতে বসে। ছাগলের গাড়ি চাকার শব্দ হচ্ছে বজ্রপাত ও হাতুড়ির আঘাত হচ্ছে বিদ্যুৎ চমকানো। থরের প্রতি সম্মান রক্ষার্থে তারা সপ্তাহের একটি দিনের নাম রাখে Thoresdaeg ‘থরেসডায়েজ’। যাকে আজ থার্স ডে বা বৃহস্পতিবার বলা হয়। নাঊযুবিল্লাহ!

Friday- দেবী Frigg-এর নাম থেকে, শুক্রবারকে ইংরেজিতে বলা হয় Friday, রোমানরা বিশ্বাস করত যে, Odin ‘ওডিন’ একজন শক্তিশালী দেবতা। তার স্ত্রী দেবী ফ্রিগ। প্রকৃতির দেবী ভালোবাসা ও বিবাহের দেবীও ছিল ফ্রিগ। এই জন্য লোকেরা বাকি একটি দিনের নাম Frigdaeg‘ফ্রিগডায়েজ’ বা ফ্রাইডে রাখে। নাঊযুবিল্লাহ!

Saturday- শনি গ্রহের (Saturn) সম্মানে। নাঊযুবিল্লাহ! শনিবারের ইংরেজিতে বলা হয় Saturday, রোমান আমলের লোকেরা এই বলে বিশ্বাস করত যে, চাষাবাদের জন্য ‘স্যাটার্ন’ নামের একজন দেবতা আছে। যার হাতে আবহাওয়া ভালো-খারাপ করা লেখাটি আছে। তাই তাকে সম্মান করার জন্যই তার নামে একটি গ্রহের সাথে সপ্তাহের একটি দিনের নাম Satuidaeg ‘স্যাটর্নিডায়েজ’ রাখা হয়েছে। যার অর্থ হচ্ছে স্যাটার্নের দিন। বর্তমানে তা ‘স্যাটারডে’ নামেই পরিচিত। নাঊযুবিল্লাহ!

মুসলমান উনাদের জন্য এভাবে গ্রহ-নক্ষত্র, দেব-দেবীর নামানুসারে দিনের নাম ব্যবহার করা কুফরী।

‘ফসলী সন’ যখন প্রবর্তিত হয়, তখন কিন্তু ১২ মাসের নাম ছিল-: কারওয়াদিন, আরদিভিহিসু, খারদাদ, তীর, আমরারদাদ, শাহরিয়ার, মিহির, আবান, আয়ুব, দায়, বাহমান ও ইসকান্দার মিয। পরবর্তী পর্যায়ে সেগুলো বৈশাখ, জ্যৈষ্ঠ, আষাঢ়, শ্রাবণ ইত্যাদিতে রূপান্তরিত হয়। এখানে স্পস্ট যে ফারসী নাম পরিবর্তন করে নক্ষত্র অনুযায়ী নামকরণ করা হয়। কারণ অনেক নক্ষত্রের নামে হিন্দুদের দেবতা আছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করে যে, নাক্ষত্রিক নিয়মে বাংলা সনের মাসগুলোর নাম নিম্নে বর্ণিত নক্ষত্রসমূহের নাম থেকে উদ্ভুত হয়েছে-

মাসের নাম নক্ষত্রের নাম
বৈশাখ বিশাখা
জ্যৈষ্ঠ জ্যেষ্ঠা
শ্রাবণ শ্রাবণা
ভাদ্র ভাদ্রপদা
আশ্বিন আশ্বিনী
কার্তিক কার্তিকা
অগ্রহায়ণ অগ্রহায়ণ
পৌষ পৌষা
মাঘ মঘা
ফাল্গুন ফাল্গুনী
চৈত্র চিত্রা

ফসলী সনের সপ্তাহের সাত দিনের নামও হিন্দু দেবতাদের নাম অনুসারে হয়েছে

শনিবার : শনি দেবতার নাম অনুসারে
রবিবার : রবি বা সূর্য দেবতার নাম অনুসারে
সোমবার : সোম বা শিব দেবতার নাম অনুসারে
মঙ্গলবার : ধূপ বা দ্বিপের নাম অনুসারে
বুধবার, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার : গ্রহের নাম অনুসারে

কাফিরদের রচিত বলে কাফিরদের মধ্যেও কিছু লোক প্রথমে গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জি অনুসরণ করতে চায়নি। তাহলে মুসলমান উনাদের কি করা উচিত?

উদাহরণ হিসেবে এখানে তুলে ধরা হলো-
১) অনেক দেশ গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারকে প্রথমে গ্রহণ করেনি। যেমন ইসরাইল, সউদী আরব, নেপাল, ইরান, ইথিওপিয়া এবং আফগানিস্তান।
২) প্রোট্যাস্টান্ট দেশগুলোও ধীরে ধীরে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারকে গ্রহণ করে। বিশেষ করে প্রোট্যাস্টান্ট বা অন্যান্য মতবাদে বিশ্বাসী খ্রিস্টানরা এটাকে ক্যাথলিকদের একটা চক্রান্ত হিসেবেই আশঙ্কা করেছিল। তাদের ধারণা ছিল, ক্যাথলিকরা এই ক্যালেন্ডারের মাধ্যমে অন্যান্যদেরকে ক্যাথলিক মতবাদে ফিরিয়ে নেয়ার পাঁয়তারা করছে। এ কারণেই অনেক দেশে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারের প্রবর্তন প্রবল বাঁধার মুখে পড়ে।
মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন,

وَلَا تُطِعِ الْكَافِرِ‌يْنَ وَالْمُنَافِقِيْنَ
অর্থ : “তোমরা কাফির ও মুনাফিক তথা ইহুদী-নাছারা ও মুশরিক অর্থাৎ বিধর্মীদেরকে অনুসরণ অনুকরণ করো না।” (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১ ও ৪৮)

এছাড়াও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে,

عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عُمَرَ رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مَنْ تَشَبَّهَ بِقَوْمٍ فَهُوَ مِنْهُمْ
অর্থ : “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে ব্যক্তি যে সম্প্রদায়ের সাথে মিল রাখে, সে তাদের অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ তার হাশর-নশর তাদের সাথেই হবে।” (আবূ দাঊদ শরীফ, মুসনাদে আহমদ শরীফ)
আর সে কারণেই পবিত্র কুরআন শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের অনুসরণের জন্যই গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জি পরিহার করে শামসী সন ব্যবহার করা উচিত।

পোপ গ্রেগরী আবিস্কার করেছে বলেই কি তা মানা যাবে না? অনেক কাফিরতো অনেক কিছু আবিস্কার করেছে যা আমরা ব্যবহার করি : আসলে অনেক আবিস্কারের নেপথ্যে রয়েছে মুসলমান উনাদের অবদান। আর কাফিরদের তৈরি করা হয়েছে মুসলমানদের খিদমতের জন্য। যেখানে মুসলমানদের রচিত বিষয় থাকবে সেখানে মুসলমানদের বিষয় অনুসরণ করতে হবে। সময় এবং কাল গণনা মহান আল্লাহ পাক উনার নির্দেশ। সেক্ষেত্রে মুসলমান রচিত শামসী সন অবশ্যই অনুসরণীয়।

ফসলী সন তৈরি হয় মুঘল শাসক আকবরের নির্দেশে। সে মুসলমান উনাদের হিজরী সন বাদ দেবার জন্যই এই বাংলা সন চালু করেছিলো। অনেকে বলে তার সিংহাসন আরোহণের দিন মনে রাখার জন্যই এই সন চালু করে। যে ব্যক্তি দ্বীন-এ-ইলাহী নামক নতুন একটি ধর্ম তৈরি করে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনাকে ধ্বংস করার কাজে নিয়োজিত ছিল তার নির্দেশে রচিত সৌর সন অনুসরণের কোনই প্রয়োজন মুসলমান উনাদের নেই।

আমাদের বাংলা ভাষায় অনেক হিন্দুয়ানী শব্দ আছে সেক্ষেত্রে কি হবে? মুশরিকরা গরুকে বলে মা আর মায়ের অংশকে বলে মাংস। যেহেতু মুসলমানগণ গরুকে মা মনে করে না তাই তার অংশকে মাংস বলতে পারেনা। আবার তরকারীর শুরাকে তারা ঝোল বলে। এই ঝোল এসেছে জল থেকে। এরকম অনেক শব্দ আছে যা মুশরিকদের নিজেদের শব্দ, মুসলমানগণ তা ব্যবহার করতে পারেননা। অর্থাৎ বাংলা ভাষায় হিন্দুয়ানী শব্দও পরিত্যাজ্য, দেব-দেবীর নাম উচ্চারণও পরিত্যাজ্য।

সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার একটি নিজস্ব স্বকীয়তা আছে। সম্মানিত দ্বীন ইসলাম পূর্ণ ও পূর্ণাঙ্গ, এখানে অপূর্ণতার কোন অবকাশ নেই। তাই মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন-

اَلْيَوْمَ اَكْمَلْتُ لَكُمْ دِيْنَكُمْ ◌

অর্থ : “আজ আমি তোমাদের জন্যে তোমাদের দ্বীনকে পূর্ণাঙ্গ করে দিলাম।” (পবিত্র সূরা মায়িদা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৩)

যেহেতু সম্মানিত দ্বীন ইসলাম পূর্ণ। সেহেতু সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার নিয়ম-নীতি ব্যতিত অন্য কোন নিয়ম-নীতি বা রীতি গ্রহণ করার ব্যাপারে মুসলমান উনাদের হুশিয়ার করে দেয়া হয়েছে।
তাই মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,

وَمَنْ يَّبْتَغِ غَيْرَ‌ الْاِسْلَامِ دِيْنًا فَلَنْ يُّقْبَلَ مِنْهُ وَهُوَ فِى الْاٰخِرَ‌ةِ مِنَ الْـخَاسِرِ‌يْنَ ◌

অর্থ : “যে ব্যক্তি পবিত্র দ্বীন ইসলাম ছাড়া অন্য কোন দ্বীন বা নিয়ম-নীতি তালাশ করে, তা কখনোই তার থেকে গ্রহণ করা হবেনা এবং সে পরকালে ক্ষতিগ্রস্থদের অন্তর্ভুক্ত হবে।” (পবিত্র সূরা আলে ইমরান শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৮৫)

মহান আল্লাহ পাক তিনি অন্যত্র ইরশাদ মুবারক করেন-

وَلَا تُطِعِ الْكَافِرِ‌يْنَ وَالْمُنَافِقِيْنَ

অর্থ : “তোমরা কাফির ও মুনাফিক্বদের অনুসরণ অনুকরণ করো না।” (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ১ ও ৪৮)

আর পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে,

عَنْ حَضْرَتْ عَمرِو بْنِ شُعَيْبِ رَحْمَةُ اللهِ عَلَيْهِ عَنْ اَبِيْهِ عَنْ جَدّهٖ اَنَّ رَسُوْلَ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ لَيْسَ مِنَّا مَنْ تَشَبَّهَ بِغَيْرِنَا لاَتَشَبَّهُوْا بِالْيَهُوْدِ وَلَا بِالنَّصَارٰى

অর্থ : “তাবিয়ী হযরত আমর বিন শুয়াইব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনার পিতা হতে তিনি উনার দাদা হতে বর্ণনা করেন যে, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে ব্যক্তি আমাদের ভিন্ন অন্য জাতির সাদৃশ্য অবলম্বন করে সে আমাদের দলভুক্ত নয়। কাজেই আপনারা ইয়াহুদী এবং নাছারাদের সাদৃশ্য অবলম্বন করবেন না।” (তিরমিযী শরীফ, মিশকাত শরীফ ৩৯৯ পৃষ্ঠা)

পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে,

عَنْ حَضْرَتْ عَبْدِ اللهِ بْنِ عُمَر رَضِىَ اللهُ تَعَالٰى عَنْهُ قَالَ قَالَ رَسُوْلُ اللهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ مَنْ تَشَبَّهَ بِقَوْمٍ فَهُوَ مِنْهُمْ

অর্থ : “হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, যে ব্যক্তি যে সম্প্রদায়ের সাথে মিল রাখে, সে তাদের অন্তর্ভুক্ত অর্থাৎ তার হাশর-নশর তাদের সাথেই হবে।” (আবূ দাঊদ শরীফ, মুসনাদে আহমদ শরীফ)

কাজেই কোন অবস্থাতেই কাফির-মুশরিকদের অনুসরণ ও অনুকরণ করা অর্থাৎ বিধর্মীদের দ্বারা প্রবর্তিত পদ্ধতি, আইন-কানুন ও তর্জ-তরীক্বা অবলম্বন করা সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনার দৃষ্টিতে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ও হারাম। আর পৃথিবীতে প্রচলিত বিভিন্ন সৌরবর্ষপঞ্জি ব্যবহারের নিয়ম-কানুন যেহেতু বিধর্মীদের দ্বারা প্রবর্তিত। এছাড়াও এই প্রচলিত বিভিন্ন সৌরবর্ষপঞ্জির মাধ্যমে মুসলমান উনারা বিধর্মীদের বিভিন্ন দেব-দেবীর নাম স্মরণ করতে বাধ্য হয়। নাঊযুবিল্লাহ! তাই মুসলমান উনাদের জন্য সার্বিকভাবেই প্রচলিত সৌরবর্ষপঞ্জিগুলো ব্যবহার করা হারাম।